শনিবার, জুলাই ১৩, ২০২৪
spot_img

রূপগঞ্জে স্বপ্ন ভিলেজের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ভূমিদস্যুতার মামলা

রূপগঞ্জ প্রতিনিধিঃ নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী ও স্বপ্ন ভিলেজ নামক আবাসন কোম্পানীর চেয়ারম্যান আরমান মোল্লাসহ ১০ জনের নামে নারায়ণগঞ্জ আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ওই মামলার বাদি রূপগঞ্জ সদর ইউনিয়নের বাগবেড় এলাকার ব্যবসায়ী ও যুবলীগ নেতা মো. রুহুল আমিন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, রূপগঞ্জ সদর ইউনিয়নের পশি মৌজায় আরএস ৮৪৭নং দাগে ২০২৩ সালের ৯ জানুয়ারি ৩৫৬ নং ও ২০২২ সালের ২৬ ডিসেম্বর ১৯১৮২ নং আম-মোক্তারনামা দলিল মূলে ৩০ দশমিক ৯৯ শতাংশ জমি রেজিয়া ও রমিজা বেগমের কাছ থেকে ক্রয় করেন বাগবেড় গ্রামের বাসিন্দা রুহুল আমিন। পরে ওই জমিতে বাউন্ডারী দেওয়াল নির্মাণসহ নামজারী ও খাজনাখারিজ সম্পন্ন করে ভোগ দখল করে আসছেন। কিন্তু একই জমি একই দাতার কাছ থেকে ভূমিদস্যু আরমান মোল্লা, তারিক আল মামুন গং ২০২৩ সালের ২৬ ডিসেম্বর ভুয়া খাজনা খারিজ উপস্থাপন করে ১৫৫৯১নং দলিল মূলে জমি ক্রয় করেন। এরপর থেকে জমির প্রকৃত মালিক মো. রুহুল আমিনকে হুমকি ধামকি প্রদান করে জমি দখলের চেষ্টা করে আসছে আরমান মোল্লা। অসহায় হয়ে শেষ পর্যন্ত আদালতের আশ্রয় নেন রুহুল আমিন।

এলাকাবাসী জানান, সাধারণ মানুষের জমি জোরপূর্বক দখলে নিয়ে আরমান মোল্লা এখন কয়েক কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন। মাত্র ৫-৭ বছরের ব্যবধানে তিনি দেড় কোটি টাকা দামের গাড়ি হাকিয়ে চলেন। লাখ লাখ টাকা খরচ করে ২-৩ মাস পর পর দেশ-বিদেশে ঘুরে বেড়ান। তার এসব অবৈধ সম্পদের উৎস খুঁজতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন এলাকাবাসী। তাছাড়া আরমান মোল্লা ও তার সহযোগিদের গ্রেপ্তার করলে তাদের অপরাধের সকল তথ্য বেরিয়ে আসবে। এখন অবৈধ টাকার জোরে সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে রূপগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন তিনি।

জানা গেছে, আরমান মোল্লা পশি এলাকায় জলসিঁড়ি সংলগ্ন ১০০ ফুট সড়কের পাশে অনুমোদনহীন ‘স্বপ্ন ভিলেজ’ আবাসন কোম্পানি নাম দিয়ে সাধারণ মানুষের জমি দখলে নিচ্ছেন। ওই সড়কের পাশে থাকা নিরীহ বহু লোকের জমি ক্রয় না করেই সামনের অংশে আরমান মোল্লা ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে বাউন্ডারী দেয়াল নির্মাণ করেন। এতে এলাকার মানুষ ফুসে ওঠেছে। সেনাবাহিনীর ৪০ জন সদস্যের কেনা জমি ভুয়া দাতার মাধ্যমে দলিল সম্পন্ন করে রূপগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) কার্যালয়ে নামজারীর বিরুদ্ধে মিসকেস দিয়ে হয়রানি করছেন তিনি। এ ব্যাপারে সেনাবাহিনীর সদস্যরা আদালতে মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এদিকে আব্দুল খালেক মিয়ার ১ বিঘা জমি ভুয়া দলিল তৈরি করে দখলের পায়তারা করছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও ঢাকার এক ব্যক্তির ৬৫ শতাংশ জমি বাউন্ডারী দেওয়াল নির্মাণ করে দখলে রেখেছেন। স্থাণীয় হরেন্দ্র ওরফে হনু নামে এক হিন্দু লোকের ১৪ শতাংশ জমি ভুয়া দাতার মাধ্যমে দলিল সম্পন্ন করে দখলে নিয়েছেন। নুরুল ইসলাম, সেরাজউদ্দিন, সুলতানের জমিও বালু ভরাট করে দখলে নেয়ার পায়তারা করছে ভ‚মিদস্যু আরমান মোল্লা ও তার বাহিনী। এ বাহিনী রাতের আধারে জমিতে বাউন্ডারী দেওয়াল নির্মাণ করে সাধারণ মানুষকে হয়রানি করছে। ভূমিদস্যু আরমান মোল্লা ইদানিং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন। এলাকায় চেয়ারম্যান প্রার্থীতা দাবি করে এলাকায় ব্যানার, পোস্টার সেঁটে পরিচিতির চেষ্টার করছেন। অথচ ৫/৭ বছর আগেও আরমান মোল্লা মানুষের কাছ থেকে সুদে টাকা নিয়ে সংসার চালাতো। এখন দুই মাস পর পর ফ্যামিলি নিয়ে দুবাই, জার্মান, সিঙ্গাপুর, ভারত সফরে যান। তিনি এখন চলেন দেড় কোটি টাকা মূল্যের ল্যান্ডকুজার প্রাডো হাকিয়ে। এছাড়াও রয়েছে বসুন্দরা আবাসিক এলাকায় ৩টি ফ্লাট বাসা। পশি এলাকায় নিরীহ মানুষের প্রায় ২০/৩০ বিঘা জমি দখল করে রেখেছেন। কেউ প্রতিবাদ করলেই পুলিশ ও সন্ত্রাসী দিয়ে হুমকি ধামকি দিয়ে ভয় দেখায়। আরমান বাহিনীর সক্রিয় সদস্য তারিক আল মামুন, ফারুক, অনিক, সমরসহ ২০/২২জন রয়েছে।

এ ব্যাপারে বাগবেড় এলাকার বাসিন্দা ও মামলার বাদি রুহুল আমিন জানান, পশি এলাকার চিহ্নিত ভ‚মিদস্যু আরমান মোল্লা। সে এলাকার বহু নিরীহ মানুষের জমি দখলে রেখেছে। তার বেতনভুক্ত একটি সন্ত্রাসী বাহিনীও রয়েছে। তিনি আরো ১০-১২ বিঘা জমি দখলের পায়তারা করছে। আরমান মোল্লার বেতনভুক্ত বাহিনী নিয়েই এলাকায় একের পর এক অপকর্ম ও জমি দখল চালিয়ে যাচ্ছে। আরমান মোল্লা ও তার বাহিনীর বিরুদ্ধে রূপগঞ্জ থানা ও নারায়ণগঞ্জ আদালতে মাদক, জমি দখল, হামলা, সন্ত্রাসী কার্যকলাপসহ একাধিক মামলা রয়েছে। এ বাহিনীর হাত থেকে রূপগঞ্জ ইউনিয়নবাসী মুক্তি চায়।

অভিযুক্ত আরমান মোল্লার সাথে একাধিকবার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

আরো দেখুন
Advertisment
বিজ্ঞাপন

সবচেয়ে জনপ্রিয়