শুক্রবার, মে ২৪, ২০২৪
spot_img

তারাবতে কৃষক প্রশিক্ষণ ও পাটবীজ বিতরণ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ পাট গবেষণা উপকেন্দ্র রুপগঞ্জের তারাবতে কৃষক প্রশিক্ষণ ও বিনা মূল্যে পাট বীজ বিতরণ অনুষ্ঠান গতকাল বুধবার অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিজেআরআই) উদ্ভাবিত উচ্চফলনশীল তোষা পাট ও কেনাফ উৎপাদন প্রযুক্তি জনপ্রিয়করণ ও সম্প্রসারণ এর লক্ষ্যে এই কৃষক প্রশিক্ষণ ও বিনা মূল্যে পাট বীজ বিতরণ কর্মসূচীর আয়োজন করা হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিজেআরআই) এর মহাপরিচালক ড. মোঃ আবদুল আউয়াল উপস্থিত ছিলেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ড. মোঃ আব্দুল আলীম, মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোঃ গোলাম মোস্তফা, মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা বিজেআরআই, ঢাকা-১২০৭। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মুহাম্মদ তানভীর রহমান, উর্ধতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা পাট গবেষণা উপকেন্দ্র তারাব,
মোঃ রাশেদ খান মিলন, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা, বিজেআরআই, ঢাকা-১২০৭, মোঃ হুমায়ুন কবির, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা, পাট গবেষণা উপকেন্দ্র, তারাব। তাছাড়াও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, মসজিদের ইমাম এবং অত্র এলাকার গণ্য মান্য ব্যক্তিবর্ণ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. মোঃ আবদুল আউয়াল বলেন, দেশকে পাট বীজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ করতে হবে ও কৃষকদের বীজ উৎপাদন সমিতি গঠনের উপর গুরুত্বের কথা আলোচনা করেন। নিজের বীজ নিজে উৎপাদন করলে উন্নতমানের পাট বীজ পাওয়া যাবে ও পরনির্ভরশীলতা কমে যাবে। তিনি আরো বলেন, পরিবেশ রক্ষার্থে পাট চাষের বিকল্প নাই। ড. মোঃ আব্দুল আলীম বলেন, উচু ও মাঝারি উচু জমি, সঠিক পরিচর্যা এবং সময়মত (১৫ মার্চ হতে ১৫ এপ্রিল) বীজ বপন করলে উন্নতমানের অধিক পাট উৎপাদন হবে।

ড. মোঃ গোলাম মোস্তফা বলেন, বিজেআরআই উদ্ভাবিত উচ্চফলনশীল তোষা পাট ও কেনাফের জাত ব্যবহার করে অধিক পরিমাণে পাট ও কেনাফ উৎপাদনের জন্য উপস্থিত সকল কৃষকদের উৎসাহিত করেন।

কৃষক মোঃ আব্দুল হালিম সরকার তার বক্তব্যে বলেন, বিজেআরআই এর পাট ও কেনাফ উৎপাদন প্রযুক্তি লাভজনক, তিনি উপস্থিত সকল কৃষকদের বিজেআরআই উদ্ভাবিত পাট ও কেনাফ চাষের আহবান জানান। অনুষ্ঠান শেষে কৃষকের মাঝে বিনা মূল্যে বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিজেআরআই) উদ্ভাবিত উচ্চফলনশীল তোষা পাট ও কেনাফ বীজ বিতরণ করা হয়।

আরো দেখুন
Advertisment
বিজ্ঞাপন

সবচেয়ে জনপ্রিয়