শনিবার, ডিসেম্বর ২, ২০২৩
spot_img

দুই ভাইকে কুপিয়ে হত্যা, ৯ জনকে আসামি করে থানায় মামলা: গ্রেফতার-১

সংবাদ১৬.কমঃ জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার কাঁচপুর ইউনিয়নের পাঁচপাড়া এলাকায় দুই ভাইকে কুপিয়ে হত্যা ও অপর ভাইকে কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় ৯ জনকে আসামি করে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিহতদের মেজ বোন সামসুন নাহার (৪০) বাদী হয়ে গত সোমবার সোনারগাঁ থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় নিহতদের চাচা মহিউদ্দিন ও চাচাতো ভাই মোস্তফাসহ তাদের পরিবারের সদস্যদের আসামি করা হয়েছে। মামলা দায়েরের পর পুলিশ মোর্সেদা আক্তার নামে এক আসামীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাহাবুব আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার কাঁচপুর পাঁচপাড়া এলাকায় দুই নম্বর ওয়ার্ডের মৃত সানাউল্লাহর ছেলে আসলাম সানী ওই এলাকার গ্রাম্য চিকিৎসক আতাউর রহমানের কাছ থেকে ৩ শতাংশ জমি ক্রয় করেন। এ জমিসহ পার্শ্ববতী আরো একটি জমি দাবি করেন তার চাচা মহিউদ্দিন, চাচাতো ভাই মোস্তফা, মামুন ও মারুফ।

এ নিয়ে আসলাম সানী, শফিকুল ইসলাম রনি ও রফিকুল ইসলামের সাথে দীর্ঘদিন ধরে দ্বন্ধ চলে আসছিল। তাদের জমির পাশ দিয়ে সরকারী অর্থায়নে ৩ লাখ ১১ হাজার ২শ ৪১ টাকা ব্যয়ে এলজিএসপি -৩ এর আওতায় খাস পাড়া আলী হোসেনের বাড়ি থেকে হারুনের বাড়ি পর্যন্ত আরসিসি ও ড্রেন নির্মাণ কাজ শুরু হয়। এ ড্রেন মহিউদ্দিনের জায়গার উপর দিয়ে যাচ্ছে এমন দাবী করে তারা।

এ নিয়ে গত রোববার দুপুরে চাচা মহিউদ্দিনের সঙ্গে আসলাম সানীর তর্ক বিতর্ক হয়। এক পর্যায়ে চাচাতো ভাই মোস্তফার নেতৃত্বে তারা আসলাম সানী ও শফিকুল ইসলাম রনি ও রফিকুল ইসলামকে এলোপাথাড়িভাবে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করে। মুমূর্ষু অবস্থায় তাদেরকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক আসলাম সানী ও শফিকুল ইসলাম রনিকে মৃত ঘোষনা করেন। এ ঘটনায় অপর ভাই রফিকুল ইসলাম (৪০) গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত মোস্তফা (৪০), মামুন হোসেন (৩৫), মফিজুল ইসলাম (২৫), মারুফসহ (১৮) পরিবারের সবাই পলাতক রয়েছে।

সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাহাবুব আলম সুমন জানান, এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় থানায় ৯ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ মামলার এক আসামী মোর্সেদা আক্তারকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। বাকী আসামিদের গ্রেফতার করতে পুলিশ চেষ্টা চালাচ্ছে।

আরো দেখুন
Advertisment
বিজ্ঞাপন

সবচেয়ে জনপ্রিয়