সোমবার, জুলাই ১৫, ২০২৪
spot_img

ডাকাত সন্দেহে এলাকাবাসীর হামলায় নিহত ৪ ও আহত ১

সংবাদ সিক্সটিনঃ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার সাদিপুর ইউনিয়নের বাগড়ি এলাকায় ‘ডাকাত সন্দেহে’ গ্রামবাসীর গণপিটুনিতে চার জন নিহত ও গুরুতর আহত একজনকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহতদের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেলা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

গতকাল রবিবার রাত সারে ১০ টার দিকে এ ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয় বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (খ-অঞ্চল) শেখ বিল্লাল হোসেন।

তিনি জানান, তিন জন ঘটনাস্থলে মারা গেছে এবং আহত একজন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এছাড়াও আহত অবস্থায় মোহাম্মদ আলী নামে আরেকজন ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে নিহতদের মধ্যে দুই জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলো জাকির হোসেন ও আব্দুর রহিম।

স্থানীয় ৯ নং ওয়ার্ড মেম্বার জাকির হোসেন বলেন, বাগড়ি গ্রামের বড়বিলে কয়েকজন অপরিচিত ব্যক্তিকে দেখতে পান স্থানীয়রা। তাদের গতিবিধি দেখে ডাকাত বলে সন্দেহ করে। পরে স্থানীয় মসজিদের মাইকে ‘গ্রামে ডাকাত পড়েছে’ বলে ঘোষণা দিলে কয়েকটি গ্রামের মানুষ দেশিয় অস্ত্র, লাঠিসোটা, লোহার রড ও প্রত্যেকের হাতে টর্চ লাইট নিয়ে বিলের চারিদিক থেকে তাদের ঘিরে ফেলে। গ্রামবাসীর ধাওয়া খেয়ে তারা বিলের পানিতে ঝাঁপিয়ে পড়ে। স্থানীয়রা তাদের মধ্যে পাঁচ জনকে ধরে পিটুনি দিলে তিন জন ঘটনাস্থলেই মারা যায়। ঘটনাস্থল থেকে কোন অস্ত্র বা ডাকাতির কাজে ব্যবহারিক কোন কিছুই পাওয়া যায়নি বলেও জানান তিনি।

নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল, পিপিএম (বার) এলাকাবাসীর বরাত দিয়ে জানান, উপজেলার সাদিপুর ইউনিয়নের বড়বিল (বাগড়িগ্রাম) এলাকায় রাতে কে বা কাহারা একদল লোককে দেখতে পেয়ে ডাকাত বলে চিৎকার করে। পরে মসজিদের মাইকে ডাকাত পড়েছে বলে ঘোষনা দিলে বাগড়ি, কাজীপাড়া, কাজহরদী ও নানাখী সহ কয়েকটি গ্রামের লোকজন চারিদিক থেকে তাদের ঘিরে ফেলে। পরে সবাই ডাকাতদের পিটুনি দিলে ঘটনাস্থলে তিনজন ও চিকিৎসাধীন অবস্থায় একজন নিহত হয় এবং একজন চিকিৎসাধীন আছেন।

আরো দেখুন
Advertisment
বিজ্ঞাপন

সবচেয়ে জনপ্রিয়