বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২৫, ২০২৪
spot_img

‘ডিসি গার্ডেন রেষ্ট হাউস’ ভেঙে মালামাল লুট, স্ক্র‍্যাপ ব্যবসায়ী পলাতক

সংবাদ সিক্সটিনঃ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে রাতের আধারে “ডিসি গার্ডেন রেষ্ট হাউস” ভেঙে পর্যাক্রমে মালামাল লুট করে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে ভাঙারি (স্ক্র‍্যাপ) ব্যবসায়ী আশেদুল ইসলাম ওরফে রাশেদুল ইসলামের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের মেঘনা শিল্পাঞ্চল গঙ্গানগর এলাকায়। রাশেদুল ইসলাম রংপুর জেলার গংগাচড়া উপজেলার মৌভাষা নরসিংহ এলাকার মৃত ছইমুদ্দিনের ছেলে।

জানাযায়, ২০১৬ সালের ১ লা সেপ্টেম্বর নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোঃ আনিছুর রহমানের নির্দেশক্রমে তৎকালিন সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ আবু নাসের ভূঁইয়ার সার্বিক তত্বাবধানে উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের নয়াচর গঙ্গানগর এলাকায় “ডিসি গার্ডেন রেষ্ট হাউস” নামের ব্যয়বহুল ভবনটি উদ্বোধন করা হয়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ডিসি গার্ডেন রেষ্ট হাউস’র লোহার তৈরি দরজা, জানালা ভেঙে ভেতরের সকল আসবাবপত্রসহ সকল মালামাল রাতের আধারে লুট করে  নিয়ে গিয়ে অন্যত্র বিক্রি করে দিয়েছে ভাঙারি (স্ক্র‍্যাপ) ব্যবসায়ী রাশেদুল ইসলাম। এবিষয়ে মেঘনা শিল্পনগরী এলাকার অন্যান্য ভাঙারি (স্ক্র‍্যাপ) ব্যবসায়ীদের মনে আতংক বিরাজ করছে। এ ঘটনা এলাকায় জানাজানি হলে রাশেদুল ইসলাম পলাতক রয়েছে বলেও জানান ওই ব্যবসায়ীরা। রাশেদুল ইসলাম মেঘনা শিল্পাঞ্চল এলাকায় ভাড়া বাসা নিয়ে বসবাস করতেন।

স্ক্র‍্যাপ ব্যবসায়ী আবুল হোসেন বলেন, আমি বিগত ২০/২৫ বছর ধরে এ ব্যবসার সাথে জড়িত। কখনো এ ধরনের অপরাধজনিত কাজ করিনি। ডিসি গার্ডেন রেষ্ট হাউসটি ভেঙে মালামাল লুট করার কারনে প্রশাসন আমাদেরকেও দোষারোপ করতে পারে। এজন্য আমরা প্রকৃত অপরাধীকে খুঁজে বের করেছি। রাশেদুলের দোকানে মালামাল পাওয়া গেলে সে রাতের আধারে পালিয়ে গেছে।

উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে কিনা জানতে চাইলে ব্যবসায়ীরা বলেন, দীর্ঘদিন ডিসি গার্ডেন রেষ্ট হাউসটি এভাবেই পরিত্যক্ত অবস্থায় পরে আছে। যেহেতু প্রশাসনিক বিষয়, কোনদিন এবিষয়ে খোঁজ খবর নিলে আমরা যাহাতে অপরাধী না হই সেজন্য গণমাধ্যমের সাহায্যে বিষয়টি তুলে ধরলাম।

এ বিষয়ে সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আব্দুল্লাহ আল মাফুজ বলেন, মেঘনা শিল্পনগরী এলাকায় একটি “ডিসি গার্ডেন রেষ্ট হাউস” রয়েছে। আমরা খবর নেবো, যদি কেউ এমন ঘটনা ঘটিয়ে থাকে তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরো দেখুন
Advertisment
বিজ্ঞাপন

সবচেয়ে জনপ্রিয়