বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২৫, ২০২৪
spot_img

পুলিশ বলছিলো মরদেহ হাসপাতালে রয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রাজধানীর বেইলি রোডে একটি বহুতল ভবনে আগুনে নিহতদের তালিকায় রয়েছে নারায়ণগঞ্জের তরুণ-তরুণী। তারা হলেন নারায়ণগঞ্জের ভূঁইগড় পশ্চিমপাড়া এলাকার মোঃ আমজাদ হোসেনের ছেলে শান্ত ও পোশাক কারখানা রিয়া ফ্যাশনের মালিক কুরবান আলীর মেয়ে রিয়া।

শান্ত বেইলি রোডে গ্রিন কজি কটেজ ভবনের একটি রেস্তোরাঁয় চাকরি করতেন। তারা দুই ভাই এক বোন। বাবা সৌদি আরব থাকেন।

অপরদিকে রিয়া খাতুন পড়াশোনা করতেন মালয়েশিয়ায়। শনিবার (২ মার্চ) ফিরে যাওয়ার কথা ছিল তার। মালয়েশিয়ায় ফ্যাশন ডিজাইনিং এ পড়তেন রিয়া। শেষ সেমিস্টারের ছাত্রী। যাওয়ার দুই দিন আগে ভিকারুননেসা পড়ুয়া ছোট বোন আরিশা আর সিটি কলেজে পড়ুয়া খালাত বোন লিমুকে নিয়ে খেতে গিয়েছিলেন সেই রেস্টুরেন্টে।

শান্ত হোসেনের মা লিপি আক্তার বলেন, আমার ছেলে কখনও ভিডিওকলে কথা বলতো না। গতকাল রাতে হঠাৎ সে ভিডিওকল দেয়। পরিবারের সবার খোঁজ খবর নেয়। আমি তাকে জিজ্ঞেস করি তোমার কিছু হয়েছে? সে কিছু হয়নি বলে ফোন রেখে দেয়। পরে শুনি তার অফিসে আগুন লেগেছে।

শান্তর ভাই প্রান্ত হোসেন বলেন, রাতে মোবাইলে দেখি ঢাকার বেইলি রোডে আগুন লেগেছে। তখনই আমার হৃদয়ে নাড়া দেয় আমার বড় ভাই তো সেখানে চাকরি করে। আমি সঙ্গে সঙ্গে ভাইয়ের মোবাইলে কল দিলে ফোন বন্ধ পাই। পরে তার সাথের একজনকে ফোন দিলে পুলিশ ধরে বলে মরদেহ হাসপাতালে রয়েছে। সকালে মরদেহ নিয়ে বাড়িতে চলে আসি।

মেয়েকে হারিয়ে একেবারে নিস্তব্ধ রিয়া ফ্যাশনের মালিক কুরবান আলী। স্বজনরা জানান, কুরবান আলীর দুই মেয়ে। বড় মেয়ের নামে শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। সেই মেয়ে অকালে চলে গেলো।

আরো দেখুন
Advertisment
বিজ্ঞাপন

সবচেয়ে জনপ্রিয়