সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২৪
spot_img

ট্রাফিক পুলিশ হানিফের তান্ডব, টাকা দিলেই অবৈধ অটোরিকশা হয়ে যায় বৈধ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ নারায়ণগঞ্জ জেলা শহরকে যানজট নিরসনে নিরলসভাবে কাজ করছে জেলা ট্রাফিক পুলিশ। শহরে যানজটের মুল কারন হিসেবে ধরা হয় অবৈধ অটোরিকশা। আর এই অবৈধ অটোরিকশা নিয়ন্ত্রনে কাজ করছে জেলা ট্রাফিক পুলিশে ৪টি রেকার। চার রেকারের অন্যতম অপারেটর হলো এটিএসআই হানিফ। অটোরিকশা চালকরা বলছে টাকা দিলেই অবৈধ হয়ে যায় বৈধ।

চুক্তিভিত্তিক মানতি দিলেই ধরা হয় না ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা। এমনটাই হচ্ছে নারায়ণগঞ্জে। ৪জন রেকার অপারেটরের মধ্যে সবার থেকে আলাদা এটিএসআই হানিফ। রেকারে দ্বায়িত্ব পালন করার পূর্বে জেলা ট্রাফিক পুলিশের মুন্সি হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করছেন। এরকয়েক মাসের মধ্যেই দ্বায়িত্ব পান রেকার অপারেটর হিসেবে। দ্বায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই অর্থ উপার্জনে বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন এটিএসআই হানিফ।

রেকার অপারেটর এটিএসআই হানিফ তার একদল সোর্স নিয়ে শহরের চাষাড়া, মেট্রোহল, কালিবাজার সহ বিভিন্ন স্থানে ঘুরে ঘুরে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা আটক করে ডাম্পিংয়ে পাঠায়। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দিনে ৯০০ থেকে ১২০০ টাকায় চুক্তি ভিত্তিক সোর্স রয়েছে ৯ (নয়) জন। এছাড়া সোর্স দের পাশাপাশি অটোরিকশা চালকদের দিয়েও গাড়ি ধরান তিনি। এমনকি একজন চালক ৫ টি করে অটোরিকশা আটক করে দিলে নিজেদের গাড়ি ফ্রি নিয়ে যেতে পারবে এইচুক্তিতেও চালকদের দিয়েই গাড়ি ধরান তিনি।

খোঁজ নিয়ে আরো জানা যায়, এটিএসআই হানিফ টাকার বিনিময়ে মাসিক ভিত্তিতে সোর্সদের সাথে যোগাযোগ করে শহরে অটোরিকশা চলাচলের সুযোগ করে দিয়ে অবৈধভাবে অর্থ উপার্জন করে আসছে।এছাড়া রাস্তা ও ডাম্পিংয়ে তার সামনেই তার পালিত সোর্সেরা অটোরিকশা চালকদের উপর অত্যাচার করে তবুও নিশ্চুপ ভুমিকা পালন করে। আরো জানা যায় মাসিক ১০-১৫ হাজার করে টাকা নিয়ে বিশেষ পেশা ও অটো দালালদের অটোরিকশা মানতি করার অনুমতি দিয়ে থাকে। মানতির টাকা না দিলেই কার্ডের গাড়ি ধরা হয়। আর মানতি দিলেই কার্ডের গাড়ি ধরা হয় না।
তার নিজস্ব সোর্স বরাতে জানা যায়, প্রতিদিন ৬০-৭০ টি ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা আটক করে কিন্তু বেশি হলে ১৫ থেকে ২০ টি গাড়ির বিল করা হয়। এছাড়া ব্যাটারিচালিত ভ্যান গাড়ি ধরার পর জরিমানার রসিদ করা হয় না। মাঝে মাঝে রসিদ দিলেও অন্য রসিদ ফটোকপি করে দেয়া হয়। সোর্স আরো জানায় এটিএসআই হানিফ প্রতিমাসে লক্ষ লক্ষ টাকা এই ডাম্পিং থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে।

নাম প্রাকশে অনিচ্ছুক এটিএসআই হানিফকে মানতি দেয় এমন কয়েকজন জানান, মানতির টাকা উত্তোলনের দায়িত্বে রয়েছে সেক্টর ভিত্তিক অর্ধডজনেরও অধিক লোক। অটোরিকশা ছাড়ের জন্য বিভিন্ন কার্ড ফি কমপক্ষে ১০ হাজার টাকা। ক্ষেত্র বিশেষ ১২-১৫ হাজার টাকা।

এবিষয়ে এটিএসআই হানিফকে একাধিক বার ফোন করলে একবার রিসিভ করলেও অভিযোগের বিষয়ে প্রশ্ন করলে কোন উত্তর না দিয়েই ফোন রেখে দেন। পরবর্তীতে বারবার কল করা সত্বেও কোন রেসপন্স পাওয়া যায়নি।

আরো দেখুন
Advertisment
বিজ্ঞাপন

সবচেয়ে জনপ্রিয়