শুক্রবার, মে ২৪, ২০২৪
spot_img

জাল দলিলে জমি ক্রয়-বিক্রয়ের অভিযোগে মোবারক ফের কারাগারে

সংবাদ সিক্সটিনঃ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের মৃধাকান্দি (ছয়হিস্যা মৌজা) এলাকায় জাল দলিল করে জমি ক্রয়-বিক্রয়ের অভিযোগে মোবারক হোসেন নামে এক প্রতারককে গ্রেফতারের পর ফের কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

জানা গেছে এর আগে জাল দলিল ও প্রতারণা মামলায় তিনি গ্রেফতার হয়েছিলেন। গ্রেফতার হবার ৪ দিন পর শর্তসাপেক্ষে সমাজোতার মুছলেকা দিয়ে জামিনে বের হয়ে আসেন। কিন্তু এখানেই শেষ নয় জামিনে বের হয়ে তিনি আবারও জাল দলিল করে অনেকের জমি নিজের নামে রেকর্ড করিয়ে বিভিন্ন কোম্পানি ও প্রভাবশালীদের কাছে বিক্রি করে যাচ্ছে। এ ঘটনায় মোবারক হোসেনকে পুনরায় গতকাল রবিবার গ্রেফতার করা হয়েছে। মোবারক হোসেন সোনারগাঁ উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের মৃধাকান্দি এলাকার মৃত ছৈয়দ আলীর ছেলে।

ভুক্তভোগী ও জমির মালিক মৃধাকান্দি এলাকার মৃত উমুদিয়া হাজীর স্ত্রী নুরজাহান বেগম বলেন, আমার স্বামী বেঁচে নেই, আমার চার ছেলে সবাই ইটালি এবং লন্ডনে প্রবাস জীবন পার করছে। এই সুযোগে আমার মৃত স্বামীর সাইন নকল করে ছয়হিস্যা মৌছায় আমাদের জমি এসএ দাগ-৩২৪, ৩২৫ আরএস দাগ ৪১৭, ৪১৮ থেকে ১৯ শতাংশ যায়গা নিজের নামে রেকর্ড করে কোম্পানির কাছে বিক্রি করে দিয়েছে। তিনি বলেন, এর আগেও গত ১১ এপ্রিল তাকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। সমন্বয় করার কথা বলে ৪ দিন পর জামিনে বেড় হয়ে এসে আবার তালবাহানা শুরু করে। সকল তদন্তের পর পিবিআই’এর রিপোর্ট অনুযায়ী তাকে গতকাল ফের গ্রেফতার করা হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মৃধাকান্দি গ্রামের এক কৃষক জানান, মোবারক এই এলাকার অনেকের জমিই এভাবে প্রতারণা করে নিজের নামে রেকর্ড করিয়ে বিভিন্ন কোম্পানি ও প্রভাবশালীদের কাছে বিক্রি করেছে। তার বিরুদ্ধে মুখ খোলার কেউ নেই। একই এলাকার সঞ্চন আলীর ছেলে মোহাম্মদ হোসেন ও দেলুসহ কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি তার সাথে জড়িত আছে বলেও দাবী করেন ওই কৃষক।

সরেজমিনে গেল এলাকাবাসী জানায়, আড়ালে থাকা জড়িত প্রভাবশালীদের ক্ষমতাবলে জমির প্রকৃত মালিক ও সাধারণ মানুষকে ভয়ভীতি দেখিয়ে মোবারক দীর্ঘদিন যাবত মানুষের জমি দখলে নিতে সোনারগাঁ সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের দলিল লিখক ও সাবেক সভাপতি ইছাহাক মিয়ার মাধ্যমে বিভিন্ন জাল দলিল বানিয়ে মালিকানা দেখিয়ে জোরপূর্বক ভোগদখল ও বিক্রি করে কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন।

এলাকাবাসীর দাবী জাল দলিল বানিয়ে যারা জমি ক্রয়-বিক্রয় করে মানুষকে ভোগান্তি দিচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আদালতের মাধ্যমে সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হোক। সেই সাথে তদন্ত করে আড়ালে থাকা জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করলে ভবিষ্যতে কেউ এধরণের কাজ করতে সাহস পাবেনা বলেও জানান তারা।

এ বিষয়ে সোনারগাঁ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ ইব্রাহিম বলেন, জাল দলিল করে জমি ক্রয়-বিক্রয় অথবা জোরপূর্বক জমি দখলকারী কাউকেই ছাড় দেওয়া হবেনা। প্রমাণ পেলে অবশ্যই আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরো দেখুন
Advertisment
বিজ্ঞাপন

সবচেয়ে জনপ্রিয়