রবিবার, মে ১৯, ২০২৪
spot_img

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর নগ্নভিডিও ধারণ করে হুমকী, গ্রেফতার-১

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে এক প্রবাসীর স্ত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গুরুতর অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রোববার দুপুরে এঘটনায় ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে ৫ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ২/৩ জনকে আসামী করে আড়াইহাজার থানায় ধর্ষণের মামলা দায়ের করেন।

মামলা দায়ের করার পর ছোরহাব নামে এক আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আড়াইহাজার  থানার ওসি ইমদাদুল ইসলাম তৈয়ব মামলার বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ ও স্থানীয়সূত্র জানায়, স্বামী বিদেশে থাকায় ওই প্রবাসীর স্ত্রী উপজেলার সাতগ্রাম ইউনিয়নের টেকপাড়া পিত্রালয়ে সন্তানসহ বসবাস করে আসছে। বিভিন্ন প্রয়োজনে এলাকার বাজারে আসা যাওয়ার পথে সখেরগাঁও কাজীপাড়ার শহীদুল্লাহর ছেলে আশিক মিয়া (২০), টেকপাড়া এলাকার ফজল হকের ছেলে ছোরহাব মিয়া (২৮), একই এলাকার মোস্তফার ছেলে হিমেল মিয়া (২৬), শেরু মিয়ার ছেলে এনামুল হক (২৫) ও মনির হোসেনের ছেলে সুজন মিয়া (২৪) তাকে কু-প্রস্তাব দিতো। প্রস্তাবে সাড়া না দেয়ায় নানাভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শণ করে তারা।

গত ২২ সেপ্টেম্বর রাত একটার দিকে প্রবাসীর স্ত্রী প্রকৃতির ডাকে ঘর থেকে বের হলে ওই সুযোগে আসামীরা ঘরে প্রবেশ করে। ওই গৃহবধু তাদের দেখতে পেয়ে চিৎকার করার চেষ্টা করলে সুজন তাকে ধারালো ছুড়ি দিয়ে মেরে ফেলার হুমকী দিয়ে টেনে হেচরে পার্শ্ববর্তী একটি পরিত্যক্ত খালিঘরে নিয়ে যায়। সেখানে ধর্ষকরা জোরপূর্বক পালাক্রমে ধর্ষণ করে নগ্নভিডিও ধারণ করে মামলা না করার হুমকী দিয়ে তাকে ফেলে চলে যায়। পরে পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে। সেখানেই ধর্ষিতা ওই নারী চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

আড়াইহাজার থানার ওসি ইমদাদুল ইসলাম তৈয়ব জানান, মূল আসামী ছোরহাব কে গ্রেফতার করা হয়েছে। বন্ধুদের নিয়ে ধর্ষণের বিষয়টি ছরহাব স্বীকার করেছে। তার দেয়া তথ্যানুযায়ী অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশ অভিযানে নেমেছে।

আরো দেখুন
Advertisment
বিজ্ঞাপন

সবচেয়ে জনপ্রিয়