শুক্রবার, জানুয়ারি ২৭, ২০২৩
spot_img

বিস্ময়কর এক মোহনায় মেসি ম্যারাডোনা

spot_img
spot_img

সংবাদ ডেস্কঃ আনন্দশ্রুর দমকে সন্তুষ্টির যে বারিধারা বর্ষিত হলো, তা দেখে সেই পরম সত্ত্বাও নিশ্চয়ই খুশি হবেন! কতটা প্রার্থনায় এই শিরোপা মেলে, কতটা অপেক্ষায় সেই শিরোপাটা আর্জেন্টাইন ফুটবলের বরপুত্রের হাতে ওঠে—উদাহরণ হয়ে থাকবে এ পৃথিবীর সব অপেক্ষাধীন মানুষের জন্য। মেসিকে দেখে নিজ নিজ প্রার্থনার হাত হয়তো তাঁরাও ছাড়বেন না!

“এক মোহনায় মেসি ম্যারাডোনা” এই চিত্রনাট্য লিখেছিলেন কে! উত্তরটা সবাই জানেন। সবার জীবনের চিত্রনাট্য যিনি লিখেছেন, তিনি-ই লিখেছেন। ৩৬ বছর আগে ডিয়েগো ম্যারাডোনার চিত্রনাট্যও তিনি লিখেছিলেন। তখনই হয়তো ভেবে রেখেছিলেন, সাড়ে তিন দশক পর যে চিত্রনাট্য লিখতে হবে, সেটি পাল্টাবেন না। আর তাই লিওনেল মেসি ও ডিয়েগো ম্যারাডোনা মিলে গেলেন এক মোহনায়।

বিধিলিপি দুজনকে এমন এক মোহনায় মিলিয়ে দিয়েছে, যা দেখে বিস্ময় না জাগাই অস্বাভাবিক। মেক্সিকোর আজতেকা স্টেডিয়ামে বিশ্বকাপ জয়ের পর কেঁদেছিলেন ম্যারাডোনা। লুসাইলেও ঠিক একই চূড়ায় ওঠার পর মেসিও কেঁদেছেন।কেঁদেছেন আর্জেন্টিনার তরুণ সমর্থকেরা, যেভাবে ম্যারাডোনার হাতে বিশ্বকাপ ট্রফি দেখে চোখের বাঁধ ভেঙে গিয়েছিল সেসব সমর্থকের বাবা-মায়ের প্রজন্মের।

আজ সেভাবেই সেই কান্নার স্রোত আছড়ে পড়েছে লুসাইল ও আর্জেন্টিনার সীমানা ডিঙিয়ে পৃথিবীর আনাচ-কানাচে—তাবৎ আর্জেন্টিনার সমর্থকদের চোখে কিংবা বুকে।

spot_img

জনপ্রিয় সংবাদ